ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন -ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কি কি লাগে -nid check

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন -ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কি কি লাগে -nid check




এনআইডি কার্ড ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন কোন কোন বিষয়ে সংশোধনের ক্ষেত্রে কি কি কাগজপত্র প্রয়োজন হয় সংশোধনী কোন কোন বিষয় সংশোধনের ক্ষেত্রে কি কি কাগজপত্র প্রয়োজন হয় টেন ডিজিট লেমিনেটিং অনলাইন গার্ল অনেকেই প্রশ্ন করেন 







যে স্মার্ট কার্ড সংশোধন করব সেটা সংশোধন হবে বা সংশোধন করতে কি কি লাগবে অথবা আমার অথবা আমার অনলাইন কার্ড অনলাইন কার্ড আলাদা কোন শব্দ নেই প্রত্যেকটা কানেকি প্রত্যেকটা কার্ডের কাজ আর একজন ব্যক্তি যদি এনআইডি কার্ডের অধিকারী হয়ে থাকে








সকলে একটি বিষয় জানে আরও কিছু নতুন সংযোজন সংশোধন আমাদের এখানে খুব স্বাভাবিক কত যে ভুলগুলো করে থাকে নিজের নাম পিতার নাম মাতার নাম জন্ম তারিখ এবং ভোটার এলাকার ঠিকানা ঠিকানা ভুল সংশোধনের পার্থক্য রয়েছে 30 বছর পার হলে ধরনের কাগজপত্র তো বন্ধুরা







ধরনের কাগজপত্র প্রথমে আমরা জানবো যদি আমাদের নাম সংশোধন হয় সে ক্ষেত্রে কি কি কাগজপত্র প্রয়োজন পড়বে আপনার নাম যদি সংশোধন করতে চান সেক্ষেত্রে আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদ মাস্ট বি লাগবে অর্থাৎ জন্ম নিবন্ধন সনদ আপনার দিতেই হবে দিতেই হবে 







যদি আপনার বাংলা নামের ক্ষেত্রে হয় তাহলে আপনি বাংলা জন্ম নিবন্ধন সনদ ব্যবহার করে করতে পারবেন তবে ইংরেজিতে করতে পারবেন তবে যদি আপনার জন্ম নিবন্ধন বাংলা এবং ইংরেজি থাকে যদি চেঞ্জ না বাংলা এবং ইংরেজি হয় তাহলে জিনিসটা খুব ভালো হয় 







এবং পেন্ডিং থাকার সম্ভাবনা কম থাকে দ্রুত হওয়ার চান্স বেশি থাকে আচ্ছা যদি আপনার নাম সংশোধন করতে চান যদি আপনার বয়স ত্রিশ বছরের নিচে হয় আপনি যদি বিবাহিত হয়ে থাকেন তাহলে আপনার স্বামী বা স্ত্রী কাগজ দিতে হবে







 অর্থাৎ কিনা অথবা জন্ম নিবন্ধন সনদ এবং যদি সন্তান-সন্ততি থেকে থাকে তাহলে সন্তানদের কাগজপত্র দিতে হবে আর যদি অবিবাহিত হয়ে থাকেন তাহলে আপনার ফ্যামিলি পার্সন 30 বছরের নিচে যদি আপনার ফ্যামিলিতে কয়জন রয়েছে







প্রত্যেকের কাগজ দিতে হবে যদি বয়স সংশোধন তাহলে অবশ্যই আপনাকে উপহার হিসেবে সমাদৃত হবে যদি পরিচয় না দিতে পারেন তাহলে আপনাকে দিতে হবে আর যদি সম্পূর্ণ নাম সংশোধন হয়েছে ধর্মান্তরিত হলেও তার ধর্ম পরিবর্তন করলেন সেই নামটি পরিবর্তন করতে পারবেন 







সার্টিফিকেট আরও নানান রকমের যদি থাকে পাঠান জন্ম নিবন্ধন সনদ আপনাকেই দিতে হবে এবং জন্ম নিবন্ধনে যে তথ্যটি রয়েছে সেই তথ্য অনুযায়ী আপনি আপনার ভোটার আইডি সংশোধন করতে পারবেন বাড়তি কোনো অর্থাৎ জন্ম নিবন্ধনে যেটা নেই সেটা করতে চাইলে সম্ভব না 







আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদ অনুযায়ী সংশোধন করতে পারবেন আপনার পিতা অথবা মাতার নাম কিন্তু সাপোর্টিং ডকুমেন্টারিতে আগেই বললাম যে যদি আপনার বয়স 30 এর নিচে হয় স্বামী-সন্তানের কাগজপত্র দিতে পারেন আর যদি 30 বছরের উপর হয় তাহলে স্বাভাবিকতায় আমরা প্রত্যেকেই বিবাহিত থাকে 







তাহলে আমাদের স্বামী এবং সন্তানের কাগজপত্র দিতে হবে যদি কেউ কতিপয় অবিবাহিত থাকতে পারি তাহলে কিন্তু আমরা পিতা মাতা ভাই বোনদের কাগজ ব্যবহার করতে পারব এর পরিবর্তন ঠিকানা পরিবর্তন গুলো সম্পূর্ণ আলাদা ঠিকানা স্থানান্তর এটা সম্পূর্ণ আলাদা বিষয় কিভাবে ঠিকানা স্থানান্তর করতে ভিডিওটি দেখে 









কিন্তু আপনার ভোটার এলাকা স্থানান্তর করতে পারবেন এবং ঠিকানা পরিবর্তন করতে পারবে না তাহলে বোঝা যাচ্ছে যে অতিরিক্ত হিসাবেএখন হয়তো অনেকে বলতে পারেন যে ভাই আমার জন্ম নিবন্ধন সনদ তাই আমি এটাকে সংশোধন করতে চাই 








কোনোভাবেই হবে না আপনার হাজার রকমের থাকতে পারে আপনার সার্টিফিকেট আপনার পাসপোর্ট থাকতে পারে কিন্তু জন্ম নিবন্ধন সনদ একটা কথা মনে রাখবেন আপনার এনআইডি কার্ড সংশোধন হবে না জন্ম নিবন্ধন অবশ্যই ডিজিটাল হতে হবে যেটা অনলাইনে যেন পাওয়া যায় 








হাতে লেখা জন্ম নিবন্ধন দিয়ে হবে অনেকে বলতে পারেন যে আমার নিজের নাম সংশোধনের ক্ষেত্রে বাবা-মায়ের কাগজপত্র দিতে হবে দিতে হবে






বলতে পারবো না এখানে হয়তো ইন্টার্নালি কোন তথ্য কন্ঠনালী কোন ভেরিফিকেশন সিস্তেম হয়ত রয়েছে তাদের মধ্যে যার কারণে নামের একটা অক্ষর চেঞ্জ করতে হলে 







আপনাকে ফ্যামিলি কাগজপত্র দিতে হবে অর্থাৎ ভাই-বোন বাবা-মা অথবা স্বামী স্ত্রীর সন্তান এগুলো দিতে হবে এগুলোর কোনো প্রয়োজনই নেই কিন্তু তারা এবং দিতেই হবে এটাই হচ্ছে যদি আপনি প্রথমবার আবেদন করেন তাহলে








 আপনাকে দ্বিতীয়বার এসএমএস করা হবে এই কাগজগুলোর এড করার জন্য আপনাকে পাঁচ দিন থেকে 10 দিন সময় দেয়া হবে এর মধ্যে চ্যাট করতে না পারেন তাহলে আপনার আবেদন বাতিল হয়ে যাবে আশা করি বুঝতে পেরেছেন

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url