জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করতে কি কি লাগে

  জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করতে কি কি লাগে - আপনি যদি নতুন করে জন্ম নিবন্ধন করতে চান তাহলে আপনার পূর্ব থেকেই জানা উচিত যে আপনার কি কি কাগজপত্র প্রয়োজন পড়বে। আজকের পোস্টে আমি তুলে ধরব জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করতে কি কি কাগজ পত্রের দরকার হবে।


অন্য পোষ্ট: জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমান অবস্থা | জন্ম নিবন্ধন অনলাইন চেক


জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করতে কি কি লাগে

অন্য পোষ্ট: জন্ম নিবন্ধন সংশোধন আবেদন অবস্থা


জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে কত টাকা লাগে



 জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করতে কি কি লাগে

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করতে যেসকল কাগজ পত্রের দরকার হবে আমি তা নিচে তুলে ধরছি। তবে এ ক্ষেত্রে যেহেতু বয়সের সময়সীমা রয়েছে তাই সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়বেন।


0 থেকে 5 বছরের শিশুদের ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন  করতে যা যা লাগবে


১. ক্লিনিক বা হাসপাতালে সার্টিফিকেট বা ছাড়পত্র ( শিশু যে ক্লিনিকে জন্মগ্রহণ করেছিল )।


২. শিশুটি যদি কোন হাসপাতালে জন্মগ্রহণ করে না থাকে সে ক্ষেত্রে  তথ্য সংগ্রহকারী হিসেবে নিবন্ধক কর্তৃক নির্দিষ্ট করা কোন এনজিও কর্মীর প্রত্যয়ন পত্র।


৩. যদি সেটিও সম্ভব না হয় তাহলে  নিবন্ধকের জন্ম সংক্রান্ত কোন দলিলের সত্যায়িত অনুলিপি  যেমন শিশুর টিকা কার্ড ।


৪. পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন সনদ অথবা জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি লাগবে।





৫ বছর বা তার অধিক শিশুদের ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন  করতে যা যা লাগবে




১.  এমবিবিএস ডাক্তারের প্রত্যয়ন ( বয়স প্রমাণের জন্য) ।

২. সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড এর মেম্বার অথবা কাউন্সিলরের প্রত্যয়ন ( জন্মস্থান বা স্থায়ীভাবে বসবাসের স্থান প্রমাণের জন্য ) ।

৩. উপরের কাগজপত্র গুলি যদি আপনার না থাকে তাহলে বয়স এবং জন্মস্থান প্রমাণের জন্য তথ্য সংগ্রহকারী হিসাবে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ বা প্রধান শিক্ষক এর প্রত্যয়ন। 


৪. এছাড়াও  আপনি বয়স ও জন্মস্থান প্রমাণের জন্য ইপিআই কার্ড বা পাসপোর্ট বা মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট অথবা কোন চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের জন্ম সংক্রান্ত ছাড়পত্র  সনদের সত্যায়িত অনুলিপি। 


৫. জন্ম তারিখ ও ঠিকানা প্রমাণের জন্য আপনি জন্ম সংক্রান্ত কোন দলিল।


৬.  এনজিও কর্মীর প্রত্যয়ন ( তবে তথ্য সংগ্রহকারী হিসাবে নিবন্ধক কর্তৃক নির্দিষ্ট করা কোন  এনজিও  কর্মী  হতে হবে)।


৭. পিতামাতার জন্ম নিবন্ধন সনদ অথবা জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি।


জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করার ক্ষেত্রে কি কি লাগবে  কিছু প্রশ্নের জবাব 

পিতা-মাতার যেকোনো একজন বিদেশ থাকলে সন্তানের জন্ম নিবন্ধন কিভাবে করবেন?


বর্তমানে তিনি বাংলাদেশে রয়েছেন তার স্থায়ী ঠিকানার প্রয়োজনীয় দলিলাদি নিয়ে যোগাযোগ করতে হবে। তখন আপনার ইউনিয়ন পরিষদের যিনি নিবন্ধন করবেন সকল কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে জন্ম নিবন্ধন করে দিবেন।



জন্ম নিবন্ধন কারী ব্যক্তি কি বাংলা এবং ইংলিশ উভয় ভাষায় সনদ পাবে


আপনি যদি জন্ম নিবন্ধন কারী ব্যক্তি হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনি দুটি ভাষায় জন্ম নিবন্ধন পাবেন।  


যদি  পূর্বে নিবন্ধন না করে  থাকলে বিবাহিত নারীর জন্ম নিবন্ধন তার স্বামীর বাড়ির ঠিকানায় করা এবং সনদে স্বামীর নাম লিখা যাবে কি?

পূর্বে যদি জন্ম নিবন্ধন না করে থাকে আইনের ৪ ধারা অনুযায়ী বিবাহিত নারী তার জন্ম নিবন্ধন স্বামীর স্থায়ী ঠিকানায় করতে পারবেন। তিনি চাইলে তার জন্ম স্থানের ঠিকানায়ও নিবন্ধন করতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন করার ক্ষেত্রে বাবা-মায়ের নাম লিখতে হবে স্বামীর নাম লেখার কোনো সুযোগ নেই।



পূর্বে যে সকল জন্ম নিবন্ধন শুধু বাংলায় আছে সেগুলি কীভাবে ইংরেজিতে করা হবে?


নিবন্ধন করার ক্ষেত্রে দুটি ভাষায় আপনার নিবন্ধন করা উচিত ছিল আপনি যদি শুধুমাত্র বাংলা ভাষায় জন্ম নিবন্ধন করে থাকেন এখন যদি ইংরেজিতে করতে চান সে ক্ষেত্রে তা সংশোধন হিসেবে গণ্য হবে ।


 জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন বিধিমালা ২০১৮-এর ১৫ বিধি অনুযায়ী আপনাকে সংশোধন করতে হবে।


পিতা-মাতার একজন অপ্রাপ্য/নিখোঁজ  অথবা বিবাহ বিচ্ছেদ হলে সন্তানের জন্ম নিবন্ধন কীভাবে হবে?


যদি এই রকম সমস্যায় আপনি পরে থাকেন তাহলে সমাধান হলো একজনের তথ্য দিয়ে অন্যজনের শুধুমাত্র নাম দিয়ে জন্ম নিবন্ধন করা যাবে । ধরুন বিবাহবিচ্ছেদ হয়েছে এখন সন্তান তার মায়ের সাথে থাকে সেই ক্ষেত্রে তার মায়ের  যাবতীয় তথ্য দিয়ে শুধুমাত্র বাবার নাম দিয়ে জন্ম নিবন্ধন করবে ।



জন্ম নিবন্ধন অনলাইন করতে কি কি লাগে আজকের এই পোস্টে আমি চেষ্টা করেছি সকল তথ্য তুলে ধরার জন্য । এরপরও জন্ম নিবন্ধন নিয়ে আপনাদের যদি কোন তথ্য জানার প্রয়োজন পড়ে তাহলে সরকারি এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে আপনি আপনার সঠিক তথ্য দেখে নিন।







Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url