অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম ২০২২-জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমান অবস্থা-জন্ম নিবন্ধন যাচাই

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করার নিয়ম ২০২২-জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমান অবস্থা-জন্ম নিবন্ধন যাচাই




বন্ধুরা বাংলাদেশের প্রত্যেকটি ইউনিয়নে জন্ম সনদের রয়েছে তার কারণ যখন জন্ম নিবন্ধন বই থেকে সেটা অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন তখন টাইপিং এ অনেক এর ইংলিশ টা করেছে কারণ নিজের মানে কারো বাবার নামে কারণ জন্মতারিখের এই সমস্ত তথ্য কিন্তু প্রায় প্রত্যেকেরই ভুল হয়েছে এখন বর্তমানে আমরা সকলেই জানি কিন্তু জন্ম নিবন্ধন কার্ড কেউ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে এখন ভোটার আইডি কার্ডের পাশাপাশি জন্ম নিবন্ধন কার্ড একটি কাজের জন্য প্রযোজ্য হবে জন্ম নিবন্ধন কার্ডের ভুল সংশোধন করা যায়






জন্ম সনদের যদি ভুল হয় তাহলে সেই ভুল তথ্য সংশোধন করার জন্য আপনাদেরকে অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে এই মোবাইল ফোন করতে পারবেন যদি সম্ভব হয় তাহলে করার জন্য আবেদন শেষঃ আবেদন করতে হয় সুতরাং ওপেন করতে পারবেন না তাই চেষ্টা করবেন করার জন্য সর্বপ্রথম ওয়েবসাইটে 






সেখান থেকে জন্ম নিবন্ধনের কার্ড এবং এখানে দেখতে পারবেন জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন আবেদন নামের একটি অপশন আপনার এখান থেকেই অপশনটিতে ক্লিক করবেন এবং আপনার দেখতে পারবেন যে পিতা মাতার নাম সংশোধন করতে হলে নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলো অনুসরণ করুন যদি আপনার পিতা মাতার নাম সংশোধন করতে চান তাহলে নিচে থেকে এই তথ্যগুলো আপনাকে অনুসরণ করতে হবে যে তোমার পিতা মাতার নাম সংশোধন করব না তাই আমি এখান থেকে জন্ম নিবন্ধনের নাম্বারটা দিয়েছিলাম এবং জন্মতারিখ জন্মতারিখ লিখে দিলাম বন্ধুরা মনে রাখবেন আপনার জন্ম নিবন্ধন এর নাম্বার এবং এখানে আপনার জন্ম তারিখ এবং অবশ্যই এগুলো করার আগে আপনার যে জন্ম নিবন্ধন কার্ড রয়েছে 






সেটাকে ডিজিটাল করে নিতে হবে তার মানে ডিজিটাল করার আগে কিন্তু আপনারা অনলাইনে সার্চ করে আপনার জন্ম নিবন্ধন কার্ড পাবেন না আপনি ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে আগে সবার প্রথম জন্ম নিবন্ধন কার্ড ডিজিটাল করে নিবেন জন্ম নিবন্ধন এর নাম্বার এবং জন্মতারিখ দেওয়ার পরে নিচের অনুসন্ধান লেখাতে ক্লিক করবেন নিচের অনুসন্ধানের ঠিক করলে দেখতে পারবেন আপনার জন্ম নিবন্ধন টি আমাদের সামনে চলে আসছে এবার আপনারা জিজ্ঞাসা করবেন এখান থেকে নির্বাচন করুন লেখাতে আপনারা ক্লিক করে দিবেন নির্বাচন করুন এ ক্লিক করলে আপনি দেখতে পারবেন যেখানে আপনাকে দুটি অপশন দেবে কোন গ্রাম এবং বাতিল আপনি এখান থেকে কনফার্ম এ ক্লিক করবেন কনফার্ম এ ক্লিক করার পর এখান থেকে আপনার ঠিকানা টা সিলেক্ট করতে হবে প্রথমে তারপরে তারপরে তারপরে উত্তর উপজেলা তারপরে হচ্ছে 







আপনার ইউনিয়ন অথবা আপনার যে সিটি কর্পোরেশন বাজেটে হোক আপনি সেটা ছিল করে দিবেন এখান থেকে এখান থেকে কি করে আপনি এখানে দেখতে পারবেন পরবর্তী নামের একটি অপশন রয়েছে আপনার এখান থেকে পরবর্তীতে ক্লিক করবেন পরবর্তীতে ক্লিক করার পরে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন করতে পারবেন এখানে কিন্তু আপনারা প্রথমবারে কিন্তু আপনার জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর সকল তথ্য সংশোধন করে নিতে পারবেন যেমন নিচে দেখতে পাচ্ছেন সংশোধিত তথ্য নির্বাচনের এখানে অপশন রয়েছে সেটা দেখতে পাচ্ছেন বিষয় এই যে আপনি কিশোধন করতে পারবেন তার একটা লিস্ট চলে আসছে যেমন আপনার বানানে ভুল থাকলে এখান থেকে বাংলা মানে কি করবেন ইংরেজি নাম এবং জন্মতারিখ সংশোধন করে 







যেটা দিতে চান সেটা এখানে লিখবেন আমি যেহেতু জন্ম তারিখ সংশোধন করব তাই এখান থেকে সংশোধিত যে তার মানে যেটা আমি সংশোধন করবো সেই তারিখ টা এখানে দিয়ে দিব তারপর এখানে দেখতে পাচ্ছেন সংশোধনের কারণ এই অপশন থেকে আপনারা সিলেক্ট করবেন ভুল লিপিবদ্ধ করা হয়েছে এখান থেকেই এই অপশনটি সিলেক্ট করবেন এবং নিচের তথ্য সংযোজন করুন এখানে আপনারা অন্যান্য তথ্য সংশোধনের জন্য আবেদন করতে পারেন এখান থেকে এখান থেকে এখান থেকে পরবর্তী স্টেপে হলো আপনাকে এখানে আপনার জন্মস্থান এর ঠিকানা স্থায়ী ঠিকানা এবং বর্তমান ঠিকানা এখানে ছিলেন করতে হবে 







সঠিক ভাবে আপনার জন্ম নিবন্ধন কার্ড-এর যেভাবে ঠিকানা দেওয়া রয়েছে আপনি ঠিক সেভাবে জন্মস্থান এর ঠিকানা স্থায়ী ঠিকানা বর্তমান ঠিকানা এখানের দিবেন দয়া করে আপনারা যে কাজটি করবেন নিচের দিকে চলে যাবেন নিচে থেকে গেলে দেখতে পারবেন আবেদনকারীর তথ্য নামের একটি অপশন রয়েছে 






এখান থেকে আপনি যদি নিজে নিজে করতে চান তাহলে এখান থেকে নিয়ে কি করবেন যদি আপনে আপনার ছেলের জন্য আবেদন করতে চান তাহলে এখান থেকে পিতা মাতা পিতা পিতামহকরবেন এবং এর বাইরে থাকেন তাহলে অন্যান্য লিখে আপনি সম্পর্কটি খানে টাইপ করে দিবেন যেহেতু আমি নিজেরটা নিজেই করব তাই এখান থেকে নিয়েছিলেন নিয়েছিলে সাজাতে দেখতে পাচ্ছেন এখানে আমার নাম চলে আসছে এবার 







আপনারা নিচে থেকে ফোন নাম্বার সিলেক্ট করে এখানে আপনার ফোন নাম্বারটা দিয়ে দিবেন এবং আপনার ইমেইল এড্রেস দিয়ে দিবেন বন্ধুরা মনে রাখবেন এই ফোন নাম্বার এবং ইমেইল এড্রেসে কিন্তু আপনাকে তথ্য আপডেট করা হবে যে আপনার জন্ম নিবন্ধন কার্ড ঠিক সংশোধিত হয়েছে কিনা তৈরি মোবাইল নাম্বার ইমেইল এড্রেস ধরে নিচে দেখতে পাচ্ছেন 







এর সংযুক্তি নামের একটি অপশন রয়েছে এখান থেকে আপনারা সংযোজনে লেখাতে ক্লিক করবেন এবং এখানে আপনার চেয়ে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস আছে সেগুলো আপলোড করে দিবেন যেমন আমার জন্ম তারিখ এর ক্ষেত্রে আমার প্রয়োজন পড়বে আমার ভোটার আইডি কার্ড এবং যেখানে আমি আমার ভোটার আইডি কার্ড টেটাস করে দিব 








এখান থেকে আমি সংযোজনের ক্লিক করলাম সংযোজনের ক্লিক করার পরে আমি এখান থেকে আমার ভোটার আইডি কার্ড ডিলেট করলাম এবং এখানে দেখতে পাচ্ছেন যে যে সিলেক্ট অপশনে জায়গা আমি এখান থেকে সিলেক্ট করলাম নিবন্ধন এই ব্যক্তির জাতীয় পরিচয় পত্র আমার আমার জাতীয় পরিচয় পত্র লেখা লিখেছিলেন করার পরে স্টার্ট এ ক্লিক করলাম এবং দেখতে পারবেন এ ক্লিক করলেই কিন্তু আমার এটা আপলোড হয়ে যাবে এখানে এখানে আপনার যে অন্যান্য সংশোধনের জন্য যে ডকুমেন্টগুলো প্রয়োজন সেটা আপনারা আপনাদের নিকটস্থ নিবন্ধকের কার্যালয় রয়েছে






 সেখানে শুনে নিবেন শুনে আপনি সেই অন্যান্য যে তথ্যগুলো রয়েছে সেই ডকুমেন্টগুলো আপনি এখানে আপলোড করবেন আপলোড করার পরে আফ্রিন নিচে দেখতে পারবেন যে পেমেন্ট এর মাধ্যমে দুইভাবে পেমেন্ট করতে পারবেন একটা হচ্ছে বিবাহিত চালান আরেকটা হচ্ছে এখান থেকে যদি চালানের মাধ্যমে করতে চান তাহলে আগে আপনাকে চালানের মাধ্যমে প্রেম করে আসতে হবে তারপর এখানে চালান নাম্বার দিয়ে এখান থেকে সাব্বির করতে হবে তো আমি মনে করি এই অপশনটি দিলেই ভালো হবে তো এখান থেকে পেয়েছিলাম এবং 






এখান থেকে আমি সাবমিট এ ক্লিক করে দিলাম ক্লিক করে সাজাতে পারবেন যেখানে আপনার আবেদন সেখানে আপনাকে একটি নাম্বার দেওয়া হবে আবেদন প্রেরণের নাম্বারে নাম্বারটা আপনাকে মোবাইলের ম্যাসেজ করে দেওয়া হবে এখানে দেখতে পাচ্ছেন নিচের বাটনে ক্লিক করে আবেদনপত্রটির করে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ এখানে একটি ডেট দেওয়া হয়েছে 15 দিনের ভিতরে সংশ্লিষ্ট নিবন্ধকের কার্যালয় দাখিল করুন তবে এর আগে আপনাকে আবেদনটি রয়েছে যেখান থেকে প্রিন্ট করবেন 







সেটা আপনাকে নিবন্ধকের কার্যালয় যোগাযোগ করতে হবে তার মানে আপনার যদি ইউনিয়ন পরিষদ থাকে তাহলে সিটি কর্পোরেশন সিটি কর্পোরেশনের যোগাযোগ করতে হবে এবং সেখানে যোগাযোগ করলে আপনাকে পরবর্তীতে পদক্ষেপগুলো রয়েছে পরবর্তীতে সেটা বলে দেবে এবং কিভাবে আবেদন করার পরে কিন্তু অল্প কিছুদিনের ভিতরেই আপনার সংশোধিত যে জন্ম নিবন্ধন কার্ড রয়েছে সেটা কিন্তু আপনার নিয়ে নিতে পারবেন

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url